স’রকারিভাবে ডে’টিং অ্যা’প চা’লু ক’রেছে ইরান-”বিস্তারীত ভিতরে”

দেশের জনসংখ্যা বাড়াতে এক অভিনব পদক্ষেপ নিয়েছে ইরান। সরকারিভাবে চালু করেছে ডেটিং অ্যাপ । যার নাম দেয়া হয়েছে ‘হামদাম।

সম্প্রতি দেশটিতে ডিভোর্স বেড়ে যাওয়া এবং বিয়ের হার কমতে থাকায় , এই ডেটিং অ্যাপ চালুর সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। এক প্রতিবেদনে এমন তথ্য জানিয়েছে বিবিসি। সেখানে বলা হয়, তরুণদের ‘দীর্ঘ এবং সমৃদ্ধশালী বিয়ের’ লক্ষ্যে ইসলামিক ডেটিং অ্যাপটি চালু করেছে তেহরান। ফার্সি ভাষায় ‘হামদাম’ অর্থ ‘সঙ্গী’। ইরানের রাষ্ট্রীয় টেলিভিশন জানিয়েছে, এই সেবা ব্যবহার করে একজন ব্যবহারকারী তাদের সঙ্গী খুঁজতে এবং পছন্দ করতে পারবেন।

এ ইস্যুতে ইরানের সাইবারস্পেস পুলিশ প্রধান কর্নেল আলি মোহাম্মদ রাজাবি জানান, ইরানে রাষ্ট্র স্বীকৃত এটাই একমাত্র প্লাটফর্ম। দেশটিতে বিভিন্ন ডেটিং অ্যাপ বেশ জনপ্রিয় থাকলেও হামদাম ছাড়া সব গুলোই অবৈধ।

হামদাম অ্যাপটি তৈরি করেছে, ইরানের ইসলামিক প্রোপাগান্ডা অর্গানাইজেশনের নিয়ন্ত্রণাধীন তেবিয়ান কালচারাল ইন্সটিটিউট । হামদামের ওয়েবসাইটে দাবি করা হয়েছে, অ্যাপটির ‘কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার’ সাহায্যে ‘একজন ব্যাচেলার স্থায়ী বিয়ের জন্য সিঙ্গেল সঙ্গী খুঁজে’ পাবেন সেখানে।

ডিভোর্স বেড়ে কমছে বিয়ে, সমস্যা সমাধানে সরকারি ডেটিং অ্যাপ। ইরানে জনসংখ্যা বৃদ্ধি বিশ্বের সব দেশের জন্য মাথাব্যথার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। কেউ চেষ্টা করছে তাদের দেশের জনসংখ্যা কমুক। আবার কেউ তাদের দেশে জনসংখ্যা বাড়ানোর চেষ্টায় নানা পদক্ষেপ নিচ্ছে। এব জনসংখ্যা বাড়নোর তেমনই এক পদক্ষেপ নিয়েছে ইরান সরকার। সেজন্য সরকারিভাবে ডেটিং অ্যাপ চালু করেছে দেশটি।

প্রতিবেদনে বলা হয়, তরুণদের ‘দীর্ঘ এবং সমৃদ্ধশালী বিয়ের’ লক্ষ্য নিয়েই ইসলামিক ডেটিং অ্যাপটি চালু হলো। যার নাম রাখা হয়েছে ‘হামদাম’। ফার্সি ভাষায় হামদাম শব্দের অর্থ ‘সঙ্গী’। ইরানের রাষ্ট্রীয় টেলিভিশন জানিয়েছে, এই সেবা ব্যবহার করে একজন ব্যবহারকারী তাদের সঙ্গী খুঁজতে এবং পছন্দ করতে পারবেন।

ইরানের সাইবারস্পেস পুলিশ প্রধান কর্নেল আলি মোহাম্মদ রাজাবি এ প্রসঙ্গে জানান, ইসলামিক প্রজাতন্ত্রে রাষ্ট্র স্বীকৃত এটাই একমাত্র প্লাটফর্ম। দেশে আগে থেকেই বিভিন্ন ডেটিং অ্যাপ বেশ জনপ্রিয়। তবে হামদাম ছাড়া বাকি সব প্লাটফর্মই অবৈধ।