শ্রীলঙ্কান নব দম্পতির ছবি বাংলাদেশে ভাইরাল হবার কারণ

যুগল ছবিগুলো শ্রীলঙ্কার। কিন্তু বাংলাদেশের সোশ্যাল প্ল্যাটফর্মে রোববার সকাল থেকেই ছবিগুলো ভাইরাল হয়ে পড়েছে।

থিকসানা ফটোগ্রাফি নামের একটি প্রফেশনাল ফটোগ্রাফি ফেসবুক পেইজে ছবিগুলো প্রকাশ করা হয় শনিবার রাতে। এরপর ক্রমশ সেগুলো ছড়াতে থাকে। ছড়াতে ওয়েব দুনিয়ার সীমানা পেরিয়ে দেশীয় হোমপেইজ দখল করে নেয়।

একটু খোঁজ নিয়ে জানা যায়, সিংহলিজ ভাষায় একজন প্রফেশনাল ফটোগ্রাফার যুগলের নাম লিখে ছবিগুলো পোস্ট করেন, এবং বলেন এ ধরনের ছবি তুলতে চাইলে তার সঙ্গে যেন যোগাযোগ করা হয়।

নেট জনতার ছবিগুলো কারণবশত পছন্দ হয়ে যায়, যার কারণে ক্রমশ শেয়ার করতেই থাকে। যার ফলে শ্রীলঙ্কা থেকে দেশীয় সোশ্যাল প্ল্যাটফর্মের হোম পেইজ দখল করতে থাকে। ছবির যুগলের নাম যথাক্রমে নেথমি ও বুড্ডিকা। ছবিগুলো ‘পোস্ট উইডিং ফটোগ্রাফি।’ অর্থাৎ বিবাহ পরবর্তী ফটোশেসনের ছবি এসব।

আরো দেখুন : রাজধানীর পল্লবীতে নিজের ছেলের স্ত্রীকে সর্বনাশ করার অ’ভিযোগে শ্বশুরকে গ্রেফ’তার করেছে পুলিশ।

আজ রবিবার পল্লবী থেকে ৭০ বছর বয়সী ওই বৃদ্ধকে পল্লবী থানা পুলিশ গ্রেফ’তার করে। পল্লবী থানার উপপরিদর্শক সাইফুর রহমান গণমাধ্যমকে জানান, রবিবার দুপুরে ভুক্তভোগী ওই গৃহবধূ নিজেই পুলিশের হেল্প লাইন ৯৯৯-এ ফোন দিয়ে অ’ভিযোগ জানান।

পরে পল্লবী থানা পুলিশ ঘটনাস্থল মিরপুরে অভিযো’গকারীর বাসায় যায়। সেখানে গিয়ে অভি’যোগের সত্যতা পেয়ে শ্বশুরকে গ্রেফ’তার করে।

জানা গেছে, অভিযুক্ত বৃদ্ধ একজন অবসরপ্রাপ্ত ব্যাংক কর্মকর্তা। নিজের বাড়িতেই তিনি তার প্রতি’বন্ধী ছেলে ও পুত্রবধূকে নিয়ে বসবাস করতেন বলে জানায় পুলিশ।

ভুক্তভোগী ওই নারী জানান, তার স্বামী প্রতি’ব’ন্ধী হওয়ার সুযোগ নিয়ে শ্বশুর তাকে সর্বনাশ করেছে। ৪ থেকে ৫ মাস আগে তার শাশুড়ি মা’রা গেছেন বলেও জানান তিনি।

এসআই শফিয়ার রহমান বলেন, খবর পেয়ে তাৎক্ষনিক ঘটনাস্থলে পৌঁছায় পুলিশের দল। সেখান থেকে অ’ভি’যুক্ত বৃ’দ্ধকে আ’টক করা হয়। একই সাথে ভু’ক্ত’ভোগী ওই নারীকে উ’দ্ধার করা হয়। তার ডা’ক্তারি পরী’ক্ষার ব্যবস্থা করা হচ্ছে।