শাকিব খানই সেরা, আমার প্রিয় নায়ক : কাদেরী

সত্তরের দশক থেকে মঞ্চের সঙ্গে যুক্ত। টানা ১৫ বছর মঞ্চে অভিনয় করেছেন। এরপর ১৯৮৬ সালে বাংলাদেশ টেলিভিশন এবং বেতারের তালিকাভুক্ত শিল্পী হন। দীর্ঘদিনের ক্যারিয়ারে কাজ করেছেন অসংখ্য নাটকে। এখনও অভিনয় করে যাচ্ছেন নান্দনিকতায়। বলছি গুণী অভিনেতা খলিলুর রহমান কাদেরীর কথা। নাটকের বাইরেও তিনি কাজ করেছেন বিজ্ঞাপন, সিনেমাতে। তার প্রথম সিনেমা আবিদ হাসান বাদল পরিচালিত ‘ধনী গরীবের প্রেম’।

এদিকে গেল মার্চে শুরু হতে যাওয়া জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে নিয়ে নির্মিতব্য বায়োপিকে ক্যাপ্টেন মনসুর আলীর চরিত্রে অভিনয়ের সুযোগ পেয়েছেন তিনি। তাই এই চরিত্রে সুযোগ পাওয়াটিকে তিনি তার অভিনয় জীবনের সর্বশ্রেষ্ঠ স্বীকৃতি হিসেবেই বিবেচনা করছেন। যদিও গেলো মার্চ মাসে বায়োপিকের শুটিং শুরু হবার কথা ছিলো। কিন্তু করোনার কারণে তা পিছিয়ে গেছে। তারপরও শুটিং শুরু হওয়ার পূর্ব পর্যন্ত এক অস্থির সময়ের মধ্যেই কাটছে কাদেরীর সময়। যতোক্ষণ পর্যন্ত ক্যাপ্টেন মনসুর আলী’রূপে ক্যামেরার সামনে দাঁড়াতে পারছেন না ততক্ষণ পর্যন্ত যেন তিনি স্থিরই হতে পারছেন না। এরইমাঝে নিজের ভেতর ক্যাপ্টেন মনসুর আলীর চরিত্র ধারণ করারও চেষ্টা করছেন তিনি।

খলিলুর রহমান কাদেরী বলেন, ‘আমার চার দশকেরও বেশি সময় ধরে অভিনয় জীবনের পথচলায় ক্যাপ্টেন মনসুর আলী চরিত্রে কাজ করার সুযোগ পাওয়া আমার অভিনয় জীবনের শ্রেষ্ঠ প্রাপ্তি হিসেবেই বিবেচনা করবো আমি। যারা আমাকে এই চরিত্রে অভিনয়ের জন্য নির্বাচিত করেছেন তাদের কাছে আমি আন্তরিকভাবে কৃতজ্ঞ। আমি চরিত্রটিতে অভিনয়ের জন্য অধীর আগ্রহ নিয়ে অপেক্ষা করছি। কারণ নিজেকে পর্দায় ক্যাপ্টেন মনসুর আলী হিসেবে দেখার প্রবল ইচ্ছে। সবকিছু ঠিক হয়ে গেলো ইনশাআল্লাহ বায়োপিকের কাজ শুরু হবে।’