মাহিও অন্যদের মতো একজন মানুষ

অনেকে বলেন, কোনো মেয়ের বয়স জিজ্ঞেস করা নাকি এক ধরনের অপরাধ। তারপরও অভিনেত্রী মাহিয়া মাহির বয়স নিয়ে কৌতূহল রয়েই গেছে। তিনি এখন যেসব কাণ্ডকারখানা করে বেড়াচ্ছেন, তা দেখে মনে হয়, কৈশোরের দুরন্তপনা এখনও তার মনের মধ্যে ভর করে আছে। কী করছেন মাহিয়া মাহি? তা দেখতে হলে তার ইউটিউব চ্যানেলে একবার ঢুঁ মারুন। তাহলেই দেখবেন, কত রকম ছেলেমানুষি করে যাচ্ছেন জনপ্রিয় এই অভিনেত্রী।

অবশ্য সেসব দেখে মজা পাননি, এমন মানুষের সংখ্যাও খুব কম। বয়সকে হার মানিয়ে মাহি যে কত চরিত্রে অভিনয় করতে পারেন, তা স্পষ্ট হয়ে উঠেছে তার আপলোড করা ভিডিওগুলোয়। মাহির কথায়, ‘করোনার ঘরবন্দি সময় কীভাবে কাটছে, তা নিয়ে অনেকের নানা প্রশ্ন ছিল। তাই কী করছি, না করছি, তা নিজের ইউটিউব চ্যানেলের মাধ্যমে জানানোর এই চেষ্টা। সেই সঙ্গে দর্শক আনন্দ পাবেন, এমন কিছু মজার টিকটক ধাঁচের ভিডিও তৈরি করেছি। এতে নিজের অভিনয়ের ক্ষুধাও কিছুটা মিটেছে, ভক্তরা আনন্দ পেয়েছেন- আর কী চাই।’

শুধু ঘরে বসেই ভিডিও তৈরি করে যাচ্ছেন মাহি তা কিন্তু নয়। এরই মধ্যে ‘নবাব এলএলবি’ ও ‘আশীর্বাদ’ নামের দুটি ছবিতে চুক্তিবদ্ধ হয়েছেন তিনি। জানিয়েছেন, শিগগিরই শ্বশুরবাড়ি সিলেট থেকে ফিরবেন। ৫ তারিখ থেকে শুরু করবেন অনন্য মামুনের ‘নবাব এলএলবি’ ছবির শুটিং। এ ছবির মাধ্যমে দীর্ঘদিন পর আবার জুটি হিসেবে দেখা যাবে শাকিব খান ও মাহিয়া মাহিকে।

এর আগে ‘ভালোবাসা আজকাল’ ছবিতে জুটি হয়ে অভিনয় করেছিলেন তারা। ছবি দর্শকের মাঝে সাড়া ফেললেও গত কয়েক বছর শাকিবের সঙ্গে অভিনয়ে দেখা যায়নি মাহিকে। এর কারণ জানতে চাইলে মাহি বলেন, নায়কপ্রধান ছবিতে কাজ করা নিয়ে একটু অনীহা ছিল। একজন অভিনেত্রী হিসেবে আমারও কিছু চাওয়া, নিজের চরিত্র যেন দর্শকের কাছে গুরুত্বপূর্ণ হয়ে ওঠে। কাহিনি শুধু নায়ককে ঘিরে ঘুরপাক খাবে- এমন ছবিতে কাজ করতে চাইনি। বিষয়টা এমন না যে, শাকিবের ছবিতে নায়িকারা কখনও গুরুত্ব পায়নি। পেয়েছে, কিন্তু ওই যে বলে না, ব্যাটে-বলে মিলে যাওয়া; তা হয়নি বলেই ‘ভালোবাসা আজকাল’ ছবির পর আমাদের একসঙ্গে দেখা যায়নি। শাকিব খান তো অনেক বড় তারকা, সহশিল্পী হিসেবেও দারুণ। প্রতিটি কাজেই নানাভাবে সহযোগিতা করেন। এমন একজন শিল্পীর সঙ্গে কে না কাজ করতে চাইবে। তাই এবার যখন তার বিপরীতে অভিনয়ের সুযোগ পেলাম, তখন তা কোনোভাবেই ফিরিয়ে দিইনি। আর অনন্য মামুনের সঙ্গেও কাজের বোঝাপড়া ভালো, তাই সব মিলিয়ে ভালো কিছুই হবে আশা করছি।

‘নবাব এলএলবি’র শুটিং তো শুরু হচ্ছে, ‘আশীর্বাদ’ ছবির জন্য কবে ক্যামেরার সামনে দাঁড়াবেন? এ প্রশ্নের জবাবে মাহি বলেন, ‘আশীর্বাদ’ ছবি নিয়ে এখনই কিছু বলতে পারছি না। পরিচালক মোস্তাফিজুর রহমান মানিক সবকিছু চূড়ান্ত করার পরই শুটিং ও অন্যান্য বিষয় নিয়ে বলতে পারব। মাহির এ কথায় এটা স্পষ্ট যে, ছবির কাজ দু’দিন আগে বা পরে যখনই হোক, করোনা-পরবর্তী সময়ে দর্শক তাকে নিয়মিত অভিনয়ে পাবেন। এ কথা আরও জোরালোভাবে বলা যায় এজন্য যে, শুটিং শুরু হতে যাওয়া ছবিগুলো ছাড়াও মাহি এর আগে ‘আনন্দ অশ্রু’ ও ‘প্রেমের বাঁধন’ ছবির শুটিং শেষ করেছেন। পাশাপাশি অভিনয় করেছেন ‘আমার মা আমার বেহেশত’ ও ‘স্বপ্নবাজি’ ছবিতে। যেগুলো একে একে মুক্তি পাবে। তাই বিয়ের পর মাহি অভিনয় জগৎ থেকে সরে যাবেন বলে যারা ভেবেছিলেন, তাদের ধারণা মিথ্যা প্রমাণ হতেও বেশিদিন অপেক্ষা করতে হবে না। শুধু তাই নয়, আগামী ছবিগুলোয় দর্শক মাহিকে নতুনভাবে আবিস্কার করবেন- সেটা অনুমান করে নিতে কষ্ট হওয়ার কথা নয়। অন্তত যারা তার স্বল্পদৈর্ঘ্য ছবি ‘অক্সিজেন’ দেখেছেন, তারা অন্তত স্বীকার করবেন মাহি অভিনয়ে আগের চেয়ে পরিণত। কেননা রায়হান রাফির ‘অক্সিজেন’ ছবিতে মাহি নিজেকে ভেঙে একেবারে ভিন্নরূপে তুলে ধরেছেন।

করোনাকালের গল্প নিয়ে নির্মিত এই ছবিটি অনেকের মনেই দাগ কেটেছে। অভিনয় করে প্রশংসাও কুড়িয়েছেন মাহিয়া মাহি। হয়তো এ কারণেই অনেক সিনেমাপ্রেমী মন্তব্য করেছেন, মাহির এখন পুনর্জন্মের সময়, কারণ চলচ্চিত্রের এই দুঃসময়ে তিনি জাত শিল্পীর মতোই কাজের ধারাবাহিকতা ধরে রাখার চেষ্টা করে যাচ্ছেন। তাই মাহিকেই মানায় উঁকি দিয়ে দিগন্ত দেখার, যে আলোয় আলোকিত হয়ে উঠছেন তিনি।

অভিনয় নিয়ে তো অনেক কথাই হলো, কিন্তু এর বাইরেও যে আরও কিছু কথা থেকে যায়। মাহিয়া মাহি যে অভিনয় ছাড়াও অন্য আট-দশজন মানুষ থেকে আলাদা নন, তা জানাতেও দ্বিধা করেননি। কদিন পরপর তার সংসারে ভাঙন নিয়ে যে গুজব রটে, তা নিয়ে কথা বলেছেন এই অভিনেত্রী। তিনি বলেন, অভিনেতা-অভিনেত্রী নিয়ে গুজব নতুন কোনো বিষয় নয়। কিন্তু যারা গুজব রটিয়ে যান, তারা কেন ভুলে যান, আমরাও অন্যসব মানুষের চেয়ে আলাদা নই। আমাদেরও ঘরসংসার, পরিবার-পরিজন আছে। তাই যে কোনো কিছু রটানোর আগে একটু ভেবে দেখা উচিত, গুজবে তাদের মনের প্রতিক্রিয়া কী হয়? মাহির এই কথায় বোঝা যায়, যতটা নিজের জন্য নয়, তার চেয়ে বেশি পরিবারের মানুষদের প্রতিক্রিয়া নিয়ে। কিন্তু এতকিছুর পরও মাহি সেইসব মানুষের জন্য নিয়মিত কাজ করে যাবেন বলেও আশ্বাস দিয়েছেন। বিভিন্ন বিষয়ে মানুষকে সচেতন করে তুলতে কাজ করে যাচ্ছেন। তার কথায়, মানুষের জন্যই তিনি শিল্পী, মানুষের সুখেদুঃখে সবসময় তাই তাদের পাশে থাকতে চান।