প্রাথমিকে পদোন্নতি নিয়ে যে সুখবর দিলেন গণশিক্ষা সচিব

প্রাথমিক শিক্ষকদের পদোন্নতি নিয়ে কাজ চলছে বলে জানিয়েছেন প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব মো: আকরাম আল হোসেন। সম্প্রতি এক ফেসবুক লাইভ অনুষ্ঠানে এ তথ্য জানান তিনি।
|আরো খবর
সহকারি প্রধান শিক্ষকেরই প্রধান শিক্ষক পদে নিয়োগ পাওয়া উচিত
সেপটিক ট্যাংকে প্রাণ গেলো প্রাথমিক শিক্ষকসহ ৩ জনের
শিশু গৃহকর্মী নির্যাতন, স্বামীসহ শাবি শিক্ষক গ্রেপ্তার
ফেসবুক লাইভ অনুষ্ঠানে আকরাম আল হোসেন বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ বিষয় তুলে ধরেন। বাংলাদেশ জার্নালের পাঠকদের জন্য তার চুম্বক অংশ তুলে ধরা হলো-

১) নন ক্যাডার হতে প্রধান শিক্ষক নিয়োগ বন্ধে পিএসসি চেয়ারম্যানকে সচিবের চিঠি।

২) নিজের মহান শিক্ষকতা পেশাকে কিছু টাকা কম পান বলে দারোয়ানের চাকরির সাথে তুলনা করে ছোট না করা। নিজের পেশাকে সম্মান করতে শেখা।

৩) শতভাগ বিভাগীয় পদোন্নতি।

৪) সবাইকে উচ্চধাপে ১৩ তম গ্রেড প্রদান।

৫) কেন, কিভাবে ডিপিএড করলে বেতন কমলো তার কারণ খুঁজে বের করে ব্যবস্থা গ্রহণ।

৬) মামলার ঝামেলা সিস্টেম করে শেষ করে প্রধান শিক্ষক, সহকারী শিক্ষকদের ভবিষ্যতে যথাক্রমে ১০ম ও ১২তম গ্রেড প্রদান।

৭) যে কোন সময় যে কেউ যেনো তার সার্টিফিকেট সার্ভিস বুক তুলতে পারেন।

৮) প্রমাণ দিলে বিভিন্ন ঘুষ বাণিজ্য ও শিক্ষকদের হয়রানির বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা।

৯) স্কুল বন্ধ অবস্থায় আমাদের করণীয়, স্কুল খুললে বাচ্চাদের সুরক্ষায় করণীয়।

১০) চাকরি শেষে নিজ বিদ্যালয়ে শিক্ষকতা করবেন।

১১) কিছুদিনের মধ্যেই অনলাইন বদলী ও পেনশনের কাজ শুরু হচ্ছে।

১২) শতভাগ পদন্নোতি ব্যবস্থা করা হবে।

১৩) টাইমস্কলের ব্যাপারে ঈদের পরে সংশ্লিষ্ট সচিবের সাথে আলোচনা করে ব্যবস্থা।

১৪) শ্রান্তি বিনোদনের জন্য চেইন অনুযায়ী চাহিদা।

১৫) দাবী নয়, সমস্যা চিহ্নিত করুন ইত্যাদি।

প্রসঙ্গত, করোনার কারণে সারাদেশের সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রয়েছে। চলমান সাধারণ ছুটি আগামী ৩১ আগস্ট পর্যন্ত বৃদ্ধি করা হয়েছে।

এদিকে, ছুটি ঘোষণার পরই প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় এবং শিক্ষা মন্ত্রণালয় পৃথক আদেশে জারি করেছে।

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের আদেশে বলা হয়েছে, করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ থেকে শিক্ষার্থীদের সুরক্ষার লক্ষ্যে আগের বন্ধের ধারাবাহিকতায় আগামী ৩১ আগস্ট পর্যন্ত সব ধরনের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ও কোচিং সেন্টার বন্ধ থাকবে। এ সময়ে নিজেদের এবং অন্যদের করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ থেকে সুরক্ষার লক্ষ্যে শিক্ষার্থীরা নিজ নিজ বাসস্থানে অবস্থান করবে। শিক্ষার্থীদের বাসস্থানে অবস্থানের বিষয়টি অভিভাবকরা নিশ্চিত করবেন এবং স্থানীয় প্রশাসন তা নিবিড়ভাবে পরিবীক্ষণ করবে।

অন্যদিকে, প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের আলাদা অফিস আদেশে বলা হয়, করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ থেকে শিক্ষার্থীদের সুরক্ষার জন্য আগামী ৩১ আগস্ট পর্যন্ত সব ধরনের সরকারি-বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও কিন্ডারগার্টেন বন্ধ থাকবে। এই সময়ে নিজেদের ও অন্যদের করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ থেকে সুরক্ষার লক্ষ্যে শিক্ষার্থীরা নিজ নিজ বাসস্থানে অবস্থান করবে। শিক্ষার্থীদের বাসস্থানে অবস্থানের বিষয়টি অভিভাবকরা নিশ্চিত করবেন এবং স্থানীয় প্রশাসন তা নিবিড়ভাবে পরিবীক্ষণ করবে।

এতে আরও বলা হয়, বর্ণিত সময়ে সংশ্লিষ্ট বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকরা তাদের নিজ নিজ শিক্ষার্থীরা যাতে বাসস্থানে অবস্থান করে নিজ নিজ পাঠ্যবই অধ্যয়ন করে সে বিষয়টি সংশ্লিষ্ট অভিভাবকদের মাধ্যমে নিশ্চিত করবেন।

প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়, মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ, জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় ও স্বাস্থ্যসেবা বিভাগ থেকে সময়ে সময়ে জারি করা নির্দেশনা ও অনুশাসন মেনে চলতে হবে বলেও মন্ত্রণালয়ের আদেশে উল্লেখ করা হয়েছে।