প’রকীয়া ক’রছেন স্ত্রী, স্বা’মীর ক’ঠিন সি’দ্ধান্ত-”বিস্তারীত ভিতরে”

ভারতের হাওড়ার বালি নামক এলাকায় এক ব্যক্তি আত্মহত্যা করেছেন। স্ত্রীর পরকীয়ার কথা জানতে পেরে তিনি নিজের জীবন শেষ করে দেন। এই ঘটনায় মৃত ব্যক্তির স্ত্রীকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। ভারতের স্থানীয় গণমাধ্যমের খবরে এই তথ্য জানা গেছে।

স্থানীয় পুলিশ জানিয়েছে, মঙ্গলাহাটে কাপড়ের ব্যবসায়ী আমনের সঙ্গে প্রেম করে বিয়ে হয়েছিল নেহা শুক্লার। পাঁচ বছরের প্রেমের সম্পর্কের পর গত ১১ ডিসেম্বর বিয়ে হয় দুজনের। এরপর কিছুদিনের মধ্যেই দাম্পত্যে চিড় ধরতে শুরু করে। হুগলির উত্তরপাড়ার বাসিন্দা এক যুবকের সঙ্গে পরকীয়া শুরু হয় নেহার। এমনটাই অভিযোগ আমনের পরিবারের। যা নিয়ে আমন-নেহার মধ্যে প্রতিদিনই ঝগড়া হতো। বাইরে পার্টি করে গভীর রাতে বাড়ি ফিরতেন নেহা। আমনের কাছে টাকা চাইতেনও তিনি।

ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস বাংলার এক প্রতিবেদনে বলা হয়, গত মাসে স্বামী ও শ্বশুরবাড়ির অমতে প্রেমিকের সঙ্গে দিল্লিতে বেড়াতে যান নেহা। কিছুদিন পর ফিরে এসে আমনকে ডিভোর্সের জন্য চাপ দিতে থাকেন। সেই সময় নেহার মোবাইলে স্ত্রীর সঙ্গে প্রেমিকের আপত্তিকর ছবি পান আমন। সেই নিয়ে শুরু হয় ঝগড়া। গত ৮ এপ্রিল ঝামেলা চরমে পৌঁছায়। ঝগড়ার সময় আমনের কথোপকথন মোবাইলে রেকর্ড করতে থাকেন নেহা। আমন তাঁকে হুঁশিয়ারি দেন, তিনি এমন কিছু করবেন যা সারা জীবন মনে রাখবেন নেহা। এই হুমকি দিয়েই গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেন আমন। আর সেই ছবি-ভিডিও তোলেন নেহা।

আমনের পরিবারের অভিযোগ, স্বামীকে কোনোভাবে বাঁচানোর চেষ্টা করেননি নেহা। এরপরই বাড়ি থেকে পালানোর চেষ্টা করেন নেহা। তখন শ্বশুরবাড়ির লোকেরা নেহার মোবাইল কেড়ে নেন।

বালি থানায় নেহার বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করেন আমনের বাবা। পুলিশ সোমবার রাতে নেহাকে গ্রেপ্তার করে। মঙ্গলবার হাওড়া আদালতে পাঠানো হয় তাকে। মোবাইল ফোনটি পুলিশের কাছে জমা দেয় আমনের পরিবার।

সূত্র: ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস বাংলা।