নারী ফুটবলের দুটি টুর্নামেন্ট আয়োজনে আগ্রহী বাংলাদেশ

আগামী বছর এএফসির বয়সভিত্তিক দুটি নারী ফুটবল টুর্নামেন্টের বাছাইপর্বের আয়োজক হতে চায় বাংলাদেশ। ইতোমধ্যে এশিয়ান ফেডারেশনের কাছে আবেদনও করেছে বাফুফে। জানিয়েছেন ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক আবু নাইম সোহাগ। বয়সভিত্তিক টুর্নামেন্টগুলোতে লাল-সবুজের নারীদের পারফরমেন্স ভালো হওয়ায়, টুর্নামেন্টগুলো নিয়ে আশাবাদী তারা। সম্ভাব্য ভেন্যু হিসেবে ধরা হয়েছে সিলেট এবং কক্সবাজারকে।

ধীরে ধীরে পরাজিত হচ্ছে করোনা। ভাইরাসের আগ্রাসন ছাড়িয়ে মুক্ত মাঠে ফিরতে শুরু করেছে খেলাধুলা। ইউরোপিয়ান লিগগুলোর সফল সমাপ্তি আশাবাদী করেছে ফেডারেশনগুলোকে। সাহস বেড়েছে ফিফা এবং এএফসিরও। পুরুষদের এশিয়ান গেমস, বিশ্বকাপ বাছাইগুলো নিয়ে নতুন সূচি করেছে তারা। এবার নজর দিয়েছে নারীদের দিকে। বয়সভিত্তিক বেশকটি টুর্নামেন্ট নিয়ে নতুন করে ভাবতে শুরু করেছে বিশ্ব এবং এশিয়ান ফুটবলের নিয়ন্তারা।
সে লক্ষ্যেই, এএফসির অনূর্ধ্ব-১৬ চ্যাম্পিয়নশিপকে ১৭ বিশ্বকাপ এবং অনূর্ধ্ব-১৯ কে ২০ বিশ্বকাপের আদলে করার লক্ষ্য নির্ধারণ করেছে তারা। ইতোমধ্যে বিষয়গুলো জানানো হয়েছে অংশগ্রহণকারী দেশগুলোকেও। টুর্নামেন্টগুলো ২০২২ এ হওয়ার কথা থাকলেও, বাছাইপর্ব হবে আগামী বছরই। তাই তোড়জোড়টা একটু বেশি কর্তাদের।
তবে, এর কোনটাই খুব একটা বড় খবর নয় বাংলাদেশের জন্য। আসল খবরটা জানিয়েছেন বাফুফের সাধারণ সম্পাদক। দেশের করোনা পরিস্থিতি ভালো না হওয়ায় যখন স্থগিত হয়েছে একের পর এক টুর্নামেন্ট, তখনই বয়সভিত্তিক টুর্নামেন্ট দুটোর বাছাইপর্বের আয়োজক হতে চায় বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন। এ মর্মে এএফসির কাছে আবেদনও করা হয়ে গেছে।

আবু নাইম সোহাগ জানান, ‘এশিয়ান ফুটবল কনফেডারেশনের যে বয়সভিত্তিক টুর্নামেন্টগুলো আছে সেগুলোকে ফিফার ক্যাটাগরির সঙ্গে সমন্বয় করার জন্য তারা যে সিদ্ধান্ত নেয়েছে তার আলোকে ২০২২ সালে টুর্নামেন্ট দুটি হবে অনূর্ধ্ব ১৭ এবং অনূর্ধ্ব ২০ নামে। এই দুটো টুর্নামেন্টের কোয়ালিফায়িং আয়োজিত হবে ২০২১ সালে। আমরা এই আয়োজনের জন্য আবেদন করেছি।’

বয়সভিত্তিক এসব নারী টুর্নামেন্টে বাংলাদেশের মেয়েদের পারফরমেন্স বেশ আশাব্যঞ্জক। পরিচিত আবহাওয়া এবং মানুষের সমর্থন পেলে মৌসুমি-মারিয়ারা আরো ভালো করবে বলেই আশা বাফুফের।

২০১৯ সালে অনূর্ধ্ব-১৬ চ্যাম্পিয়নশিপ এবং একই বছর অনূর্ধ্ব-১৯ এর বাছাইপর্বে প্রথম রাউন্ড থেকেই বাদ হয়ে গিয়েছিলো বাংলাদেশ।