চাঁদপুরে পানিতে ভেসে গেছে পানচাষীদের স্বপ্ন

চাঁদপুরের হাইমচরে পানিতে ভেসে গেছে পান চাষীদের স্বপ্ন। বৃষ্টি আর জোয়ারের পানিতে ৩০০ চাষির আবাদকৃত পান নষ্ট হয়ে গেছে। জমিতে জমে থাকা পানিতে পচে গেছে পানের লতা। এতে প্রায় ১০ কোটি টাকার পান ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। ফলে হতাশ হয়ে পড়েছেন পানচাষিরা। উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা বলছে, সরকারি ভাবে পানের জন্যে আলাদা কোনো প্রকল্প না থাকায় পরামর্শ ছাড়া অন্য কোনো ভাবে সহযোগিতা করার সুযোগ নেই।
হাইমচর গিয়ে জানা যায়, পানের জন্য বিখ্যাত চাঁদপুরের হাইমচর উপজেলা। এই উপজেলার প্রায় ৫ হাজার কৃষক পান চাষ করে জীবিকা নির্বাহ করে। কিন্তু হঠাৎ করে আসা মেঘনা নদীর জোয়ারের পানি আর অতি বর্ষণের ফলে পানের বোরজে পানি জমে যায়।

এতে পানের লতায় পচন ধরে উজার হয়ে যাচ্ছে অসংখ্য পানের বোরজ। পানিতে ভেসে গেছে কৃষকের বুনা স্বপ্ন। উপজেলার চরভৈরবী, মহজমপুর, আলগী উত্তর, আলগী দক্ষিণসহ বিভিন্ন এলাকার কৃষকদের বোরজের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে।
কৃষি বিভাগের দেয়া তথ্যমতে, চাঁদপুরে মোট ২শ’ ৩৭ হেক্টর জমিতে পান চাষ করা হয়। এর মধ্যে হাইমচর উপজেলার ২শ’ ২০ হেক্টর জমিতে পান চাষ হয়। হাইমচরে মহানলি, চালতা বোটা ও নলডোগ নামের তিন জাতের পান চাষ হয়ে থাকে। জলাবদ্ধতায় এবার ১শ’ হেক্টর জমির পান নষ্ট হয়ে গেছে। এতে কৃষকরা আর্থিকভাবে অন্তত ১০ কোটি টাকার ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন।
পান চাষীরা জানায়, বিভিন্ন এনজিও ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানের নিকট থেকে ঋণ করে পান চাষ করেছে অনেক কৃষক। এই দুঃসময়ে সরকারকে তাদের পাশে দাঁড়ানোর আহ্বান জানান এই পান চাষীরা। হাইমচর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা দেবব্রত সরকার জানায়, সরকারি ভাবে পানের জন্যে আলাদা কোনো প্রকল্প না থাকায় পরামর্শ ছাড়া অন্য কোনো ভাবে সহযোগিতা করার সুযোগ নেই। হাইমচর উপজেলা চেযারম্যান নুর হোসেন জানায়, সরকারিভাবে পান চাষীদের সহায়তা প্রদানের চিন্তা-ভাবনা চলছে ।